President of Bangladesh Students League at Mymensingh District Unit.

“শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম”

মোঃ রকিবুল ইসলাম রকিব,  সভাপতি, ময়মনসিং জেলা ছাত্রলীগ

সৈয়দ নজরুল ইসলাম ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আমৃত্যু ঘনিষ্ঠ সহচর-সহযোগী!কখনো বিপ্লবী,কখনো নিশ্চুপ ভাবুক!
সর্বোপরি তিনি নির্ভীক দেশপ্রেমিক,ভীষণ বিশ্বাসী,নিভৃত চারী পরোপকারী!
বক্ষ্মপুত্রের বাঁকে বাঁকে তিনি জীবন খুঁজেছেন,দেখেছেন শাসক আর শোষোতিতের বিশাল বৈপরীত্য!

সৈয়দ নজরুল ইসলাম তাঁর রাজনৈতিক কর্মে একজন সাহসী সাংগঠনিক এবং স্বাধীন বাংলাদেশর একজন সংকটকালীন নেতা যাঁর প্রমাণ ইতিহাস ঘাটলেই পাওয়া যায়!

দেশ ও জাতি যখনই দ্বিধা-দ্বন্দ্বে পড়ে কিংকর্তব্যবিমূঢ় অবস্থার সম্মুখীন হতো তখনই তাদের সামনে সৈয়দ নজরুল ইসলাম তাঁর রাজনৈতিক মেধা ও দুরদর্শীতা দিয়ে বলিষ্ঠ হাতে সে সংকট মোকাবিলা করেছেন।
এই দিশেহারা বুভূক্ষ বাঙালি জাতিকে নেতৃত্ব দিতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখনই সমস্যায় পড়েছেন তখনই আশু সংকট নিরসনে সৈয়দ নজরুল ইসলামের স্মরণাপন্ন হয়েছেন এবং সঠিক সমাধান পেয়েছেন!

সৈয়দ নজরুল ইসলাম ছিলেন আজন্মই একজন কৃতজ্ঞতাবোধ সম্পন্ন একজন মানুষ!
পল্টনের এক বিশাল জণসমুদ্রে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে বঙ্গবন্ধুর আসনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় খালি রাখেন এবং পৌনে দুই ঘন্টা জাতির উদ্দেশে ঘটনমূলক বক্তব্য দেন!

ক্ষমতার লোভ বা কোন প্রলোভন তাকে ছুঁতেও পারেনি কোনদিন তাই তো পূর্ব পাকিস্তানের সাবেক গভর্নর মোনায়েম খানের মন্ত্রীত্বের মোলায়েম প্রস্তাবও নিঃস্বার্থে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন এবং বলেছিলেন-‘আপনার যা ইচ্ছা করুণ কিন্তু আমি কখনোই নীতিভ্রষ্ট হবো না’!

সৈয়দ নজরুল ইসলাম সত্যিই আজন্ম আদর্শিক ছিলেন এবং আদর্শে বিশ্বাস রাখতেন!
৬৯রে জামালপুরের এক জনাকীর্ণ সমাবেশে তিনি তাঁর বক্তব্যে বলেন-“আদর্শবানদের জীবন দুঃখের জীবন!তাঁরা ইতিহাসের ধারা পাল্টে দিতে সক্ষম! ইচ্ছা করলে অব্যাহত রাখতে সক্ষম!”

সৈয়দ নজরুল ইসলামের বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে বহুবার পুলিশী নির্যাতনের স্বীকার হয়েছেন এমনকি নির্মম বেত্রাঘাতের বেদনাও সহ্য করেছেন কিন্তু খুব কম সময়ই কারাবরণ করেছেন!
এরও কিন্তু ইতিহাস আছে-সাংবাদিকেরা মোনায়েম খানকে একবার বলেছিলেন-
“শেখ মুজিবকে বারবার আটক করলেও সৈয়দ নজরুল ইসলামকে কেন আটক করা হচ্ছে না?’
এর উত্তরে মোনায়েম খান বলেছিলেন-
“আমি চাই না ময়মনসিংহ অঞ্চলে আরেক মুজিবের উত্থান ঘটুক!”
আর এ থেকেই বুঝা যায় সৈয়দ নজরুল ইসলাম কতটা নেতৃত্ব গুণসম্পন্ন একজন নেতা ছিলেন!

হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ৫৪র যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজে সৈয়দ নজরুল ইসলামের বক্তব্যে মুগ্ধ হয়ে তাঁর ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতকে নেতৃত্ব দানে সক্ষম একজন দক্ষ ব্যক্তি হিসেবে অভিহিত করেন!

থাক আজ কিছু বলবো না জাতির এই মহান মানুষটি সম্পর্কে হয়তো কমই বলা হবে! তবুও শুধু এতটুকু বলবো-
“বাংলাদেশ” যদি একটি ইতিহাসের নাম হয় আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হয় সে ইতিহাসটার জনক তবে সৈয়দ নজরুল ইসলাম অবশ্যই সে ইতিহাসের একটি গৌরব অধ্যায়!

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *